পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রতারণা

পত্রিকায় ‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপন দিয়ে অভিনব কায়দায় প্রতারণার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে এক নারীকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। ১০ বছর ধরে এমন অপকর্ম চালিয়ে আসছিল একটি চক্র। প্রাথমিক অনুসন্ধানে সাদিয়া জান্নাত নামে ওই নারীর ২০ কোটি টাকার সম্পত্তির হদিস পেয়েছে সিআইডি। চক্রের অন্য সদস্যদের ধরতে অভিযান চলছে।

কানাডার সিটিজেন পাত্রীর জন্য পাত্র চাই বলে বড় বড় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন। বিজ্ঞাপন দেখে আগ্রহীদের ফোনকল। এর পর থেকেই নিয়মিত যোগাযোগ।
এবারে, প্রতারণার পরবর্তী ফাঁদ। রেস্তোরাঁয় দাওয়াত দিয়ে আইনজীবী, দোভাষী ও পিএস সহ হাজির পাত্রী। এরপর পাত্রকে বলা হতো পাত্রীর কানাডায় ব্যবসা রয়েছে। পাত্রকে বিয়ের পর সেখানে নিয়ে যাওয়ার এ জন্য পাসপোর্ট ও ভিসা খরচের জন্য চাওয়া হতো টাকা। পাত্রকে ফাঁদে ফেলে অর্থ হাতিয়ে নিয়েই যোগাযোগ বন্ধ।
ভুক্তভোগীরা বলেন, ‘ওখান থেকে দু’শ কোটি টাকা আমি আনবো, তোমার নামে আনবো এরকম করে প্রায় এক কোটি ৭৯ লাখ টাকা নিয়ে নেয়।’ ‘আমার ছেলেদের অন্য আমি যেতে চাই। আপনাকে নেওয়ার পরে ১ বছর পরে আপনার ছেলেকে নেওয়া যাবে। তারপর বলা হয় কেমন খরচ হবে সে বলছে ২০/২৫ লাখ টাকা। সেটা একবারে দিতে হবে।’ ‘কয়েক লাখ টাকা লাগবে আর বাকি টাকা আমি দিবো। এভাবে করতে করতে সে আমার কাছ থেকে প্রায় সাড়ে ৯ লাখ টাকা নিয়েছে তিন বারে।’

১০ বছরে বেশ কয়েকজনের সঙ্গে প্রতারণা করে হাতিয়ে নিয়েছেন কোটি কোটি টাকা। প্রতারিতদের অভিযোগের ভিত্তিতে মূল প্রতারক সাদিয়া জান্নাতকে গ্রেফতারের পর উঠে আসে মূল কাহিনী।

সিআইডি জানায়, সাদিয়া জান্নাতের মূল বাড়ি কুমিল্লার দেবিদ্বারে। প্রাথমিক অনুসন্ধানে প্রতারণার মাধ্যমে জান্নাতের ২০ কোটি টাকার সম্পত্তির হদিস পেয়েছে তারা।
সিআইডি এর এডিশনাল ডিআইজি শেখ রেজাউল হায়দার বলেন, ‘সাসপেক্ট এর কাছ থেকে আমরা তথ্য পেয়েছি যে সে ২০১০ সাল থেকে এ কাজ করে আসছে। তার মানে প্রায় এক যুগ। এতদিনের মধ্যে আমাদের ভেতরের কয়েকজন ভিক্টিম বিষয়টি জেনে আসছেন তাতে ২০ থেকে ২৫ কোটি টাকার উপরে। তাদের ব্যাংক একাউন্ড জব্দ করা হয়েছে। এমনকি যেদিন গ্রেফতার করা হয় সেদিন ও ব্যাংকে ৪০ লাখ টাকা ব্যাংকে এফডিআর করেছে তারা। তো এই সম্পূর্ণ টাকাটা প্রতারণার মাধ্যমে অর্জিত।’
সাদিয়াকে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদে প্রতারণা সম্পর্কে আরও তথ্য পাওয়া যাবে বলে জানায় সিআইডি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *