মাহবুব কবিরকে স্বপদে ফেরাতে ফেসবুক ইভেন্ট

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবির মিলনকে ওএসডি করায় সমালোচনার ঝড় চলছে। তাঁকে ওএসডি করার খবর প্রকাশের পরপরই সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে তুমুল প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। 

এর আগে বৃহস্পতিবার ছয় আগস্ট জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একটি আদেশে মাহবুব কবির মিলনকে রেল মন্ত্রণালয় থেকে ওএসডি করা হয়। মাহবুব কবির মিলন নিজেও তার ভেরিফায়েড ফেইসবুক  পেজে বিষয়টি নিশ্চিত করেন ।
এই ঘটনার সূত্র ধরে তাকে স্বপদে বহালের দাবিতে ফেসবুকে একটি ইভেন্টও খোলা হয়েছে। এই ইভেন্টটির নাম ‘মিলন স্যারকে দ্রুত স্বপদে দেখতে চাই।’ ইভেন্টটিতে ইতোমধ্যে সাড়া দিয়েছেন প্রায় সাতাই হাজার চারশত জন মানুষ।
ইভেন্টটির ‘ডিটেইল’ অংশে লেখা হয়েছে, জনাব মাহবুবুল কবির মিলন স্যারের বদলি (ওএসডি) আদেশ বাতিল করতে হবে। এরকম জনদরদী, সৎ, উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তারা হেরে যাওয়া মানে বংলাদেশ হেরে যাওয়া।
দ্রুত স্যারকে স্বপদে দেখতে চাই।
এই ইভেন্টটির স্থান হিসাবে ‘বাংলাদেশ সচিবালয়’ চিহ্নিত করা হয়েছে।
এর আগে গত ২৫ শে মার্চ তাকে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান থেকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ে (অতিরিক্তি সচিব) বদলি করা হয়।
মাহবুব কবির মিলন ২০১৭ সালের আগস্ট মাস থেকে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য হিসেবে কর্মরত ছিলেন। সবশেষ গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর থেকে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সেখান থেকে সরিয়ে রেল মন্ত্রণালয়ে বদলি করা হয়।
বৃহস্পতিবার তাকে ওএসডি করার পর সামাজিকমাধ্যম ফেসবুকে হাজার হাজার মানুষ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছে। তারা মিলনকে ওএসডির তীব্র সমালোচনা করছে।
উল্লেখ্য, রেলওয়ের যাত্রীসাধারণের কাছে মাহবুব কবির মিলন বেশ জনপ্রিয় একটি নাম। রেলকে জনবান্ধব করতে তিনি বেশ কিছু উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। এর মধ্যে আছে, টিকিট কাটতে এনআইডি বাধ্যতামূলক করা, অনলাইনে টিকিটের টাকা রিফান্ড করা, রেলসেবা অ্যাপের মাধ্যমে ফটো/ভিডিও যুক্ত করে তাৎক্ষণিত অভিযোগ প্রদানের ব্যবস্থা ইত্যাদি।
এছাড়া মাহবুব কবির মিলনের প্রচেষ্টার কারণে মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদাতা বিকাশ তাদের নিরাপত্তায় ব্যাপক পরবর্তন এনেছে। এর ফলে প্রতারকেরা আর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা চুরির সুযোগ পাবে না।
এর আগে তিনি নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় সম্পূর্ণ স্বচ্ছতার সঙ্গে জনবল নিয়োগ দিয়ে বেশ সুনাম কুড়িয়েছেন। নিজের অধীনে জনবল নিয়োগ হলেও তার  পরিবার ও আত্মীয়স্বজনকেও জানতে দেননি।
এছাড়া তিনি চলতি বছর কোনোরকম দুর্নীতি ছাড়া রেলে বিপুল পরিমাণ নিয়োগের ঘোষণা দিয়েছিলেন। আগামী বছরও নিয়োগ হওয়ার কথা ছিল।  এসব পরিবর্তনসহ অনেক অনিয়মের বিরুদ্ধে তিনি সোশ্যাল সাইট এবং বাস্তবে সব সময় সরব থাকতেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *