দাদার কবরের বাঁশ কাটতে গিয়ে সাপের কামড়ে নাতির মৃত্যু

বৃদ্ধ দাদা অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক রুস্তম খানের মৃত্যু হয়েছে। তাই মরদেহ দাফনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন স্বজনরা। তারই অংশ হিসেবে কবরের জন্য বাঁশ কাটতে যান নাতি জামাল খান। কিন্তু সেই বাঁশঝাড়ে থাকা বিষাক্ত সাপের ছোবলে মর্মান্তিক মৃত্যু হয় হতভাগ্য এই নাতির।

চাঁদপুরে হাজীগঞ্জ পৌরসভার ধেররা গ্রামে গত বুধবার মধ্যরাতে মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক রুস্তম খান (৮০) গতকাল বুধবার বিকেলে বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান। তার মৃত্যুর সংবাদে দুরে থাকা আত্মীয় স্বজন বাড়িতে ফিরতে শুরু করেন।
এরমধ্যেই মৃত রুস্তম খানের নাতি পিকআপ ভ্যান চালক জামাল খান, দাদার দাফনের জন্য বাড়ির পাশে বাঁশঝাড়ে বাঁশ কাটতে যান। সেখানেই বিষাক্ত সাপের ছোবলে আক্রান্ত হন জামাল খান। এর আধাঘন্টা পরই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি।
এদিকে, বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাতেই দাদা রুস্তম খানকে দাফন করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে দাফন সম্পন্ন হয় নাতি জামাল খানের।
এদিকে ছেলে জামাল খানকে হারিয়ে তার বাবা মনু খান কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, বৃদ্ধ বাবাকে হারিয়েছি তাতে কষ্ট নেই। কিন্তু চোখের সামনে জলজ্যান্ত ছেলেটাও এভাবে পরপারে চলে গেলো।  এই বলে আবারও কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি।

অন্যদিকে হাজীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহবুব উল আলম লিপন এমন মর্মান্তিক মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে যান।

ঘটনা সম্পর্কে সময় সংবাদকে তিনি  জানান, স্কুল শিক্ষক রুস্তম খান প্রবীণ ব্যক্তি ছিলেন। তার মৃত্যু স্বাভাবিক হলেও নাতি জামাল খানের মৃত্যু গোটা পরিবারকে শোকাহত করেছে।
মেয়র এই জন্য তাদের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে পরিবারটিকে হাজীগঞ্জ পৌরসভার পক্ষ থেকে সবধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *